1. admin@bomkesh.news : admin :
শুক্রবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২২, ০৫:১৯ পূর্বাহ্ন

যুদ্ধের প্রভাবে জ্বালানি সংকট, যে সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হচ্ছে জাপান

  • আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ২৫ আগস্ট, ২০২২
  • ৮৬ বার পঠিত

রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের প্রভাবে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের ন্যায় জ্বালানি সংকটে পড়েছে জাপানও। কিন্তু দেশটিতে বিদ্যুতের চাহিদা ক্রমাগতভাবে বেড়েই চলেছে। এই পরিস্থিতিতে নতুন করে পরমাণু বিদ্যুতের উপর ভরসা করতে হচ্ছে জাপান সরকারকে। ফুকুশিমা দুর্ঘটনার এক দশক পর এমন সিদ্ধান্ত নিচ্ছে জাপান।

দেশটির প্রধানমন্ত্রী ফুমিও কিশিদা বুধবার নয়া জ্বালানি নীতি ঘোষণা করেন। এতে তিনি বলেন, “ইউক্রেন যুদ্ধের জেরে প্রথাগত জৈব জ্বালানির জোগান আরও অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। খরচও বেড়েছে। এই সংকট মোকাবিলায় দেশের পরমাণু শক্তি উৎপাদন শিল্পকে পুনরুজ্জীবিত করা প্রয়োজন।

কিশিদা জানিয়েছেন শক্তির চাহিদা মেটাতে এবার ‘পরবর্তী প্রজন্মের পরমাণু চুল্লি’ নির্মাণ করবেন তারা। বস্তুত, ইউক্রেন যুদ্ধ পরিস্থিতিতে ইতোমধ্যেই ধীরে ধীরে পরমাণু বিদ্যুৎ উৎপাদন বাড়িয়ে চলেছে জাপান। সে দেশের ৩৩টি পরমাণু চুল্লির মধ্যে ১০টিতে পুরোদমে উৎপাদন শুরু হয়েছে। ফুকুশিমা-কাণ্ডের পর এই প্রথম এতগুলো পরমাণু চুল্লিকে কার্যকর করেছে টোকিও।
২০১১ সালের ভূমিকম্প ও সুনামির কারণে হাইড্রোজেন ট্যাংক ফেটে ফুকুশিমার তিনটি পরমাণু চুল্লি ধ্বংস হয়ে গিয়েছিল। অতিরিক্ত তাপের ফলে চুল্লির ভিতরে চাপ সৃষ্টি হওয়ায় অন্দরের অংশ গলে যায় ও শীতলীকরণ প্রক্রিয়া নষ্ট হয়ে যায়। এই চুল্লিগুলোকে ফের ঠাণ্ডা করতে ১০ লাখ টন পানি ব্যবহার করা হয়েছিল সে সময়। চুল্লির তেজস্ক্রিয় বর্জ্য মিশ্রিত সেই পানি শোধন প্রক্রিয়ার মাধ্যমে তেজস্ক্রিয় উপাদানগুলো বাদ দেওয়ার কাজ চলেছিল পরবর্তী কয়েক বছর ধরে। কিন্তু ট্রাইটিয়াম-সহ আরও কয়েকটি ক্ষতিকর পদার্থ সেই পানি থেকে সম্পূর্ণ বাদ দেওয়ার মতো প্রযুক্তি তাদের হাতে নেই বলে জানিয়েছিল বরাত পাওয়া সংস্থা ‘টোকিও ইলেকট্রিক পাওয়ার’ সংস্থা।

কয়েক বছর আগে সেই তেজস্ক্রিয় পানি প্রশান্ত মহাসাগরে ফেলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল জাপান সরকার। কিন্তু সে দেশের পরিবেশপ্রেমী সংগঠন ও মৎস্যজীবীরা তীব্র আপত্তি তোলে। চলতি বছর মার্চ মাসে ভূমিকম্পের সময় উত্তর-পূর্ব জাপানের মিয়াগির ওনাগাওয়া পরমাণু কেন্দ্রের নিরাপত্তা নিয়েও সংশয় তৈরি হয়েছিল। ফুকুশিমা-কাণ্ডের পর ধীরে ধীরে পরমাণু শক্তির উপর নির্ভরতা কমাতে সক্রিয় হয়েছিল টোকিও। কিন্তু ইউক্রেন যুদ্ধের প্রভাবে আবারও সেই পুরনো ঝুঁকির দিকেই হাত বাড়াচ্ছে জাপান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

© All rights reserved © 2022 Bomkesh.News
Theme Customized By Shakil IT Park